Blog

আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ডিজিটাল মার্কেটারদের বন্ধু নাকি শত্রু?

সময় পরিবর্তনশীল। পৃথিবীতে পরিবর্তন ছাড়া আর কোন কিছুই স্থায়ী নয়। সময় তার আপন গতিতে চলছে এবং এই সময়ের সাথে সাথে পৃথিবীতে পরিবর্তন হচ্ছে। নতুন নতুন আবিষ্কার হচ্ছে। মানুষের জীবনযাত্রায় পরিবর্তন আসছে। প্রযুক্তির মধ্যে নতুন নতুন আবিষ্কার যোগ হচ্ছে। যা মানুষের কাজকে অনেক সহজ করে দিচ্ছে, এবং মানুষের জীবন আরও উন্নত করে দিচ্ছে। একটা সময় ১০ জনে মিলে যে কাজ করতে অনেক সময় লাগত এখন সেই কাজ প্রযুক্তির উন্নয়ের ফলে এক দুই জন মানুষ মিলে কয়েক ঘণ্টায় করে ফেলছে। অফলাইন থেকে অনলাইন, যে কোন প্রোডাক্ট তৈরি থেকে শুরু করে বেচা কিনা থেকে সব কিছুতে এখন প্রযুক্তির ছোঁয়া লেগে আছে।

কয়েক যুগ আগেও যে কাজ মানুষের হাতে করা লাগত এখন সেই কাজ মানুষ কম্পিউটারের সাহায্য সহজে করে ফেলছে। এক দেশ থেকে আর এক দেশে যোগাযোগ করতে যেখানে কয়েক মাস লেগে যেত সেখানে এখন মোবাইল এবং ইন্টারনেট এর মাধ্যমে প্রতি মুহূর্তে বিশ্বের যে কোন প্রান্তে যোগাযোগ করা যাচ্ছে। এখন মানুষ অনলাইনে ঘরে বসে ইনকাম করতে পারছে। তাদের সার্ভিস বা প্রোডাক্ট সম্পর্কে অনলাইনে ডিজিটাল মার্কেটিং করার মাধ্যমে লাখ লাখ মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে পারছে। বিজ্ঞানের নতুন অগ্রযাত্রায় এখন যোগ হয়েছে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স বা AI প্রযুক্তি। বলা হচ্ছে এই আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স নাকি মানুষের মত সব কাজ করে দিতে সক্ষম হবে। এই ডিজিটাল সময়ে সবচেয়ে বড় সেক্টর ডিজিটাল মার্কেটিং এই সেক্টরেও নাকি আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স সামনে রাজত্ব করবে এবং ধারনা করা হচ্ছে এর ফলে অনেক ডিজিটাল মার্কেটার বেকার হয়ে যাবে। সত্যি কি আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ডিজিটাল মার্কেটারদের বেকার করে ফেলবে এটি কি তাদের জন্য বন্ধু  নাকি শত্রু হিসবে কাজ করবে এই বিষয়ে আজকের এই আর্টিকেলে বিস্তারিত জানব।

আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সে বা AI কি?

আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স হলো এমন একটি প্রযুক্তি, যা তথ্য বিশ্লেষণের মাধ্যমে যন্ত্র বা অ্যাপ্লিকেশনকে মানুষের বুদ্ধি ও চিন্তাশক্তির আদলে কাজের উপযোগী করে তোলে। আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স (AI) হল কম্পিউটার বিজ্ঞানের একটি শাখা যেখানে মানুষের বুদ্ধিমত্তা ও চিন্তা শক্তিকে কম্পিউটার দ্বারা অনুকৃত করার চেষ্টা করা হয়। AI-এর লক্ষ্য হল এমন কম্পিউটার এবং সফটওয়্যার তৈরি করা যা মানুষের মতো চিন্তা করতে, শিখতে এবং সিদ্ধান্ত নিতে সক্ষম।

আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সের লক্ষ্য কি?

আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সে এর লক্ষ্য হচ্ছে এমন প্রযুক্তি তৈরি করা যার মাধ্যমে কম্পিউটার এবং মেশিনগুলো বুদ্ধিমান পদ্ধতিতে কাজ করতে সক্ষম হবে। বুদ্ধিমত্তার তৈরি সাধারণ সমস্যাগুলো কয়েকটি সমস্যায় বিভক্ত করা হয়েছে। যে বিশেষ বৈশিষ্ট্যগুলি বা ক্ষমতাগুলি রয়েছে তা গবেষকরা একটি বুদ্ধিমান সিস্টেম প্রদর্শন করবে বলে আশা করা হচ্ছে। বর্তমানে ডিজিটাল মার্কেটিং এর অনেক বিষয়ে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সে এর অনেক কিছু ব্যবহার করা হচ্ছে।

artificial intelligence keyboard

ডিজিটাল মার্কেটিং কি?

ডিজিটাল মার্কেটিং হলো যোগাযোগ মাধ্যমের সকল প্রকার আধুনিক প্রযুক্তি, বিশেষ করে ইন্টারনেটের সুবিধা ব্যবহার করে কোনো পণ্য বা সেবার প্রচারণা চালানো। সুতরাং বলা যায় ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে আধুনিক উপায়ে যে প্রচার চালানো হয় তাই মূলত ডিজিটাল মার্কেটিং আমরা টেলিভিশনে যে বিজ্ঞাপন দেখি, ফেসবুকে যে বিজ্ঞাপন দেখি , ইউটিউবে কোন ভিডিও দেখার সময় আমাদের সামনে যে অ্যাড চলে আসে এই সব কিছু ডিজিটাল মার্কেটিং। ডিজিটাল উপায়ে এই সকল মার্কেটিং করা যায় বলে আমাদের কাছে এই বিজ্ঞাপন চলে আসে। ডিজিটাল ডিভাইস এবং প্রযুক্তি-যেমন, মোবাইল, কম্পিউটা, ইন্টারনেট ইত্যাদি ব্যবহার করে কোন পণ্য বা সার্ভিসের প্রচারনা করাই হলো ডিজিটাল মার্কেটিং।

ডিজিটাল মার্কেটিং নিয়ে যদি আপনি আরও বিস্তারিত জানতে চান এবং একজন প্রফেশনাল ডিজিটাল মার্কেটার হতে চান তাহলে জয়েন করতে পারেন আমাদের All In One Digital Marketing Masterclass (14 Courses In 1) এই কোর্সে। ব্লগিং, SEO, অ্যাফিলিয়েট, ফেসবুক মার্কেটিং, ইউটিউব, কুপন বিজনেস থেকে শুরু করে ১৪টির বেশি মার্কেটিং সেক্টরে এক্সপার্ট হয়ে যাবেন, যা আপনাকে প্রতি মাসে হাজার ডলার+ ইনকাম জেনারেটে সাহায্য করবে।

ডিজিটাল মার্কেটিং-এ আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সে ভূমিকা

ধারনা করা হচ্ছে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স দিয়ে এক সময় পুরো পৃথিবী ছেয়ে যাবে। মানুষের কাজ এক সময় থাকবে না বললেই চলে। ২০২৩ সালে এসে মার্কেটিং সেক্টরে একটি বড় অংশ দখল করে নিয়েছে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স (AI), যা ডিজিটাল মার্কেটিং এর গুরুত্ব বহুগুনে বাড়িয়ে দিয়েছে এবং ডিজিটাল মার্কেটিং এর অনেক কাজ সহজ করে দিয়েছে।

উদাহরণ হিসেবে ফেসবুক মেসেঞ্জারের কথা ধরা যাক- যদি কোন কিছু কিনার জন্য কোন কোম্পানিকে মেসেঞ্জারে নক করলে তারা সাথে সাথেই উত্তর দিয়ে থাকে। চাহিদা অনুযায়ী যদি কোন পণ্য চাই তাহলে তারা পছন্দমতো পণ্যও দেখাতে পারে। শুধু তাই নয়, তারা আমার পছন্দ বা চাহিদার উপর ভিত্তি করে পরবর্তীতে আমাদের সামনে পণ্য প্রদর্শন করে। আরও সহজভাবে বলতে গেলে যদি ফেসবুকে টিশার্ট সার্চ করি, তাহলে ফেসবুক আমাদেরকে বিভিন্ন সাইটের টি শার্ট সম্পর্কে এ্যাড দিয়ে যায় এবং নতুন কালেকশন সর্ম্পকে অবগত করে থাকে। এটি মূলত আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এর কাজ। তাই বলা যায় সময়ের সাথে সাথে ডিজিটাল মার্কেটিং সেক্টরে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সের ভূমিকা বেড়ে যাচ্ছে। কারণ প্রযুক্তির নতুন নতুন আবিষ্কার কিন্তু এখন ডিজিটাল মার্কেটিং সেক্টরকে আরও আকর্ষণীয় করে তুলছে, তার মধ্যে অন্যতম কিছু হল-

চ্যাটবট (Chatbot)

বর্তমানে আলোচিত বিষয়গুলোর মধ্যে একটি হলো এই চ্যাটবট। আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স দ্বারা পরিচালিত এই চ্যাটবট ব্যবহারকারীর যেকোনো চাহিদা সহজেই অনুধাবন করে সেই অনুযায়ী তথ্য সরবরাহ করে থাকে। চ্যাটবটস হলো একটি কম্পিউটার প্রোগ্রাম বা সফটওয়্যার, যা মানুষের সাথে ইন্টারঅ্যাকশন করে। এটি বিভিন্ন টেকনোলজি ব্যবহার করে নির্দিষ্ট উত্তর বা কাজ করতে সক্ষম হয়, যা ব্যবহারকারীদের জিজ্ঞাসা করলে উত্তর দেয় ও নির্দিষ্ট কাজগুলি করতে সক্ষম হয়। চ্যাটবটস সাধারণত ওয়েবসাইট বা অ্যাপ্লিকেশনের মাধ্যমে ব্যবহার করা হয় এবং আধুনিক একটি কমিউনিকেশন প্রযুক্তি হিসাবে চ্যাটবট বেশ কার্যকারী।

chatbot chatgpt

ফেসবুক ইতোমধ্যে নিজেদের চ্যাটবট AI ব্যবহার করে বিভিন্ন ব্র্যান্ড পেইজের সাথে একত্রিত হয়েছে। এরকম আরো অনেক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এবং ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মে যেমন ইন্সটাগ্রাম, টুইটার, লিংকড‌ইন ইত্যাদি এই AI চ্যাটবট সহজে ডিজিটাল প্রদর্শনী প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে। চ্যাটবটের সবচেয়ে বড় সুবিধা হলো এটি ইউজারদের কাজে সহায়তা করে। অনলাইন কেনাকাটা, কোথাও যাওয়া-আসার টিকেট বা হোটেল- রেস্তোরাঁর টেবিল বুকিং থেকে শুরু করে গাড়ি ভাড়া, অনলাইন খাবার অর্ডার করা এরকম অনেক কিছুই চ্যাটবটের মাধ্যমে করা যায়। বিজনেসের ক্ষেত্রে সময়ের কার্যকারিতা বাড়াতে এবং ক্লায়েন্টের সাথে তাৎক্ষনিক যোগাযোগ স্থাপনা করতে ChatBot এখন ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের জন্য আবশ্যক হয়ে পড়ছে। এজন্যই মূলত পৃথিবীব্যাপী এর ব্যবহার দিন দিন বেড়েই চলেছে।

চ্যাট জিপিটি (ChatGpt)

চ্যাট জিপিটি একটি আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্ট কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সম্পূর্ণ রোবট বা প্রটোকল। Chat অর্থ চ্যাট আর GPT মানে হচ্ছে জেনারেটিফ প্রি-ট্রেনড ট্রান্সফরমার। আপনি যখন গুগল বা ওন্য কোন সার্চ ইঞ্জিনে কিছু সার্চ করেন। তখন তারা আপনাকে সেই সম্পর্কিত অনেক Websites সামনে এনে দেয়। কিন্তু ChatGPT সবার থেকে ভিন্ন উপায়ে কাজ করে।

chatgpt

ChatGPT মূলত কাজ করে সরাসরি কোন প্রশ্নের উত্তর খুজে দিতে। এখানে যখন আপনি কোন প্রশ্ন সার্চ করেন বা কোন বিষয় সম্পর্কে জানতে চান? তখন সে আপনাকে সেই প্রশ্নের সরাসরি উত্তর প্রদান করবে। একাধিক বার একাধিক স্টাইলে প্রশ্ন করলে একাধিক উত্তর এনে দিবে। এখানে আপনি YouTube Video Script, Blog তৈরি সহ হাজারো প্রশ্নের সমাধান খুজে দিবে। এমন কি এখান থেকে আপনি ছুটির আবেদন, গান, কবিতা, উপন্যাস ও তৈরি করতে পারেন। এমনকি ChatGPT-এর পাওয়ারকে ব্যাবহার করে ব্লজ্ঞিং এর মাধ্যমে এখন অনলাইনে Passive Income-ও করা সম্ভব, আর এই বিষয়ে কমপ্লিট একটি কোর্স আমাদের MSB Academy প্লাটফর্মেই আছে। তাই সিরিয়াস হয়ে থাকলে জয়েন করে ফেলুন Blogging with Artificial Intelligence and Earn 70,000 Tk / Month কোর্সটিতে।

এটি একটি নিউরাল নেটওয়ার্ক যা বিভিন্ন টেক্সট এন্কোডিং এবং ডিকোডিং পদ্ধতি ব্যবহার করে প্রশ্নগুলি উত্তরে রূপান্তর করে। এখন Bing সার্চ ইঞ্জিনের সাথে ChatGPT যুক্ত করা হয়েছে। ডিজিটাল মার্কেটিং এর জন্য আইডিয়া বা কন্টেন্ট এখন এই ChatGPT এর সাহায্য খুব সহজে তৈরি করা যায়।

আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স কি ডিজিটাল মার্কেটারদের বন্ধু নাকি শত্রু?

এখন আপনার মনে প্রশ্ন আসতে পারে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স যেহেতু এত সব সুবিধা দিচ্ছে, মানুষের সব কাজ সে একা নিজে নিজে করে দিতে পারছে তাহলে কি এটি ডিজিটাল মার্কেটারদের জন্য হুমকি বার্তা বয়ে নিয়ে আসছে? এটি কি তাদের জন্য বন্ধু নাকি শত্রু হিসেবে ভূমিকা রাখবে? আসলে প্রযুক্তি সব সময় মানুষের জন্য কল্যাণ বয়ে আনে। আমাদের জীবন মানকে আরও সহজ করে দেয়। আমাদের কাজকে আরও সহজ সুন্দর করে দেয়। যদি আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সে এর সঠিক ব্যবহার করা যায় তাহলে বলা যায় আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্সে ডিজিটাল মার্কেটারদের বন্ধু হিসেবে কাজ করবে। কারণ আপনাকে একটি বিষয় মাথায় রাখতে হবে প্রযুক্তি যত উন্নতি করুন না কেন এটা কিন্তু মানুষের তৈরি। মানুষের সাহায্য প্রযুক্তি দিন দিন উন্নত হচ্ছে।

চ্যাট জিপিটি এবং চ্যাটবট এর মত কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সম্পূর্ণ রোবট মার্কেটিং এর অনেক কাজ সহজ করে দিয়েছে। আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্ট যত বেশি আপডেট হবে মানুষের কাজ তত বেশি সহজ হয়ে যাবে। কিন্তু অনেকর ধারনা আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্ট হয়ত ডিজিটাল মার্কেটারদের ক্যারিয়ার নষ্ট করে দিবে বা চাকরী খেয়ে ফেলবে। এই বিষয়ে আমি বলব আপনি যদি সময়ের সাথে নিজেকে আপডেট না করেন তাহলে অনেকটা পিছিয়ে যাবেন তাই সময়ের সাথে সাথে প্রযুক্তির সাথে নিজেকে আপডেট করতে হবে। এবং যখন সে প্রযুক্তি আসবে সেটার সঠিক ব্যবহার শিখে নিতে হবে। টেকনোলোজির যতোই অগ্রগতি হোক না কেন মানুষের প্রয়োজন কখনোই ফুরাবে না।

ডিজিটাল মার্কেটারদের জন্য আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স বা AI কী সুফল বয়ে আনবে

আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ডিজিটাল মার্কেটারদের জন্য অবশ্যই সুফল বয়ে নিয়ে আসবে। কারণ পুরানো মার্কেটিং কৌশলে এখন আর মানুষকে সেইভাবে আকৃষ্ট করা যায় না। সব কিছুতে এখন মানুষ নতুনত্ব খুঁজে। মানুষ এখন ব্লগ পোস্ট থেকে তথ্য দেখার চেয়ে ভিডিও দেখায় আগ্রহ বেশি। তাই ভালো ভিডিও কন্টেন্ট গ্রাহকদের আকৃষ্ট করে। কিন্তু ব্যয়বহুল টিভি কমার্শিয়ালগুলো (টিভিসি) বা বিজ্ঞাপন চলচ্চিত্রের সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ছোট ভিডিও কন্টেন্টের টিকে থাকাটা নির্ভর করে সেটি ঠিক কতটা দর্শকদের সাথে যুক্ত হতে পারছে তার উপর। ইন্টারেক্টিভ ডিজিটাল ভিডিওগুলো যদি ব্যবহারকারীদের মন ছুঁয়ে যায় তারা অবশ্যই পণ্যের খুঁটিনাটি সম্পর্কে জানতে আগ্রহী হবে।

এর বড় সুবিধাটি এখানেই যে, ভিডিও নির্মাণকারী জানতে পারে ভোক্তারা কোনটিতে আগ্রহ পাচ্ছে, কোনটিতে পাচ্ছে না। অর্থাৎ ফিডব্যাক জানতে পারে। যেটি টিভিসি পারে না। এটি ডিজিটাল মার্কেটিং কৌশল এবং আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স যোগাযোগ ব্যবস্থার সুফল। অর্থাৎ আপনি এখানে মানুষের চাওয়ার উপর নির্ভর করে আপনার মার্কেটিং কন্টেন্ট তৈরি করতে পারছেন। আপনার তৈরি করা ভিডিও মার্কেটিং কৌশল মানুষ কিভাবে দেখছে সেটার রিভিউ আপনি পাচ্ছেন। তাই বলা যায় আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ডিজিটাল মার্কেটিং-এ সুফল বয়ে নিয়ে আসবে যদি এর সঠিক ব্যবহার করা যায়।

তাই বলা যায়, আপনি যদি ডিজিটাল মার্কেটিং-এ আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স এর সঠিক ব্যবহার করতে পারেন তাহলে আপনার সময় বাঁচবে, কাজের গতি বাড়বে অবশই এটি আপনার জন্য বন্ধু হিসেবে কাজ করবে এবং আপনার কাজের

Comments

  • User Avatar
    rakhi004
    June 7, 2024

    দারুণ হয়েছে আর্টিকেলটি। অনেক সুন্দর করে বুঝিয়ে বলা হয়েছে। এখন মনে হচ্ছে ডিজিটাল মার্কেটিং শিখার পাশাপাশি আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স নিয়ে শিখতে হবে। আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স নিয়ে কোন কোর্সটি ভাল হবে??

Leave a Reply