fbpx

ফেসবুক থেকে ইনকামের সহজ ১০টি উপায়

earn money from facebook

ফেসবুক নামটির সাথে আমরা সবাই খুব পরিচিত। সকালে ঘুম থেকে উঠে হাতে মোবাইল নিয়ে প্রথম কাজ ফেসবুক এর নোটিফিকেশন চেক করা। বাংলাদেশে বর্তমানে ফেসবুক ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৫ কোটি ২০ লাখ এবং সর্বোচ্চ ফেসবুক ব্যবহারকারীর দেশ হিসেবে বাংলাদেশের অবস্থান দশম। দেশে মোট মেসেঞ্জার ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৩ কোটি ৭৫ লাখ ২৭ হাজার। সুতরাং বুঝতেই পারছেন দেশের জনসংখ্যার বিশাল একটা অংশ প্রতিদিন ফেসবুক ব্যবহার করে থাকে।

কেউও হয়ত সময় কাটানোর জন্য করে থাকে আবার কেউ হয়ত বিনোদনের জন্য ফেসবুক ব্যবহার করে থাকে। তার মধ্যে থেকে কিছু মানুষ রয়েছে যারা এই ফেসবুক ব্যবহার করে প্রতিমাসে লাখ লাখ টাকা ইনকাম করছে। এমনকি প্রতি মাসে একটা পেসিভ ইনকাম আসছে। পেসিভ ইনকাম হল আপনি একবার একটি কাজ করে রাখবেন সেটা থেকে প্রতি মাসে একটা ইনকাম আসতেই থাকবে। আপনার হাতে থাকা মোবাইল ফোন যা দিয়ে আপনি সারাক্ষণ ফেসবুক Scrolling করেন, আপনি চাইলে এখান থেকেও প্রতি মাসে খুব ইনকাম করতে পারেন। আজকের এই আর্টিকেলে আমরা ফেসবুক থেকে ইনকাম এর কিছু সহজ কিছু উপায় জানব।

ফেসবুক কি?

ফেসবুক হলো এমন একটি অনলাইন ওয়েবসাইট যেখানে আপনি আপনার বিচার, ধারণা, জ্ঞান, ছবি, video বা ব্যক্তিগত জীবনের কিছু অংশ, এই ওয়েবসাইটে সক্রিয় (active) অন্যান্য ব্যবহারকারীর এর সাথে share করতে পারবেন। তবে এসব করার ক্ষেত্রে আপনার একটি Facebook account খুলতে হবে।

ফেসবুক অ্যাকাউন্ট খুলার সময় কিছু বিষয়ের দিকে লক্ষ্য রাখতে হবে

ফেসবুক থেকে ইনকাম এর শুরু টা কিন্তু আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকেই তার কারন হল ফেসবুক থেকে ইনকামের যত রকমের উপায় রয়েছে সব কিছু পরিচালনা করতে হবে এই ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকেই। তাই ফেসবুকে যখন অ্যাকাউন্ট ওপেন করবেন তখন অবশ্যই আপনার নিজের সুন্দর নামটি ব্যবহার করবেন এবং ইনফরমেশন যা দিবেন সব যেন সঠিক হয়।

আর অবশ্যই ফেসবুক অ্যাকাউন্ট এর সিকুউরিটির ব্যাপারটা মাথায় রাখবেন। খুব Strong একটি পাসওয়ার্ড দিবেন। পাসওয়ার্ড এর ক্ষেত্রে নাম্বরা, সিম্বল, বড়ছোট হাতের অক্ষর মিলিয়ে দিবেন তাহলে Strong পাসওয়ার্ড হবে। আর অবশ্যই দুটি জিনিস অন করে রাখবেন।

  • লগইন নোটিফিকেশন চালু রাখুন।
  • টু ফ্যাক্টর অথেনটিকেশন অন করে নিন।

আর ফিশিং লিঙ্ক এর মাধ্যমে আসা লোভনীয় কোন অফারের লিঙ্কে ক্লিক করার আগে একটু বুঝে শুনে ক্লিক করবেন। কি ভাবে বুঝবেন কোনটি ফিশিং হ্যাকিং লিঙ্ক সে সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে এই আর্টিকেলটি পড়ে ফেলুন। কমপ্লিট ধারণা পেয়ে যাবেন। আর যদি ইথিক্যাল হ্যাকিং শিখে নিজের অনলাইন ওয়েবসাইট নিরাপদ রাখতে চান তাহলে করে ফেলুন আমাদের ইথিক্যাল হ্যাকিং এই কোর্সটি। সেখানে ইথিক্যাল ভাবে সব কিছু শিখনো হয়েছে।

ফেসবুকে পেজ তৈরি করা

ফেসবুক থেকে টাকা ইনকাম করার প্রথম ধাপ হল ফেসবুকে একটি পেজ খুলতে হবে। ফেসবুক পেজ হতে পারে যেকোনো ধরনের। যেমন- ফুড রিভিউ, ট্রাভেল পেজ, নিউজ পোর্টাল কিংবা ট্রেন্ডি কোনো ট্রল পেজ। ট্রল পেজের ক্ষেত্রে সতর্ক থাকতে হবে, যেন এটি কোনো নির্দিষ্ট জনগোষ্ঠীকে আঘাত না করে বা কোনো বিতর্ক সৃষ্টি না করে। আর এই ফেসবুক বিজনেস পেইজ কীভাবে পারফেক্টভাবে খুলবেন সেই ব্যাপারে স্টেপ-বাই-স্টেপ গাইডলাইন পেতে নিচের ভিডিওটি সম্পূর্ণ দেখে ফেলুনঃ

ফেসবুক পেজ খুলে রাখলে ত আর ইনকাম হবে না। পেজের মধ্যে লাইক এবং ফলোয়ারস বাড়াতে হবে। কিভাবে পেজে লাইক বাড়াবেন? চলুন সে সম্পর্কে জেনে নেয়া যাক।

কিভাবে ফেসবুক পেজের লাইক বাড়াবেন?

ফেসবুক পেজে লাইক ও ফলোয়ার বাড়ানোর বেশ কিছু উপায় রয়েছে। তার মধ্যে থেকে আমি আপনাকে বেষ্ট ৪ টি স্টেপ এর কথা বলব। যা করলে অরগানিক ভাবে আপনি পেজে লাইক ও ফলোয়ার বাড়াতে পারবেন।

১. টপিক নির্ধারণ

এখানে টপিক বলতে একটি নিদিষ্ট বিষয়বস্তু নির্ধারণ করতে হবে। টপিক নির্ধারণ করার ক্ষেত্রে আমি আপনাকে বলব আপনি যে বিষয়ে অনেক ভাল বুঝেন সে বিষয়ে আপনার পেজে লেখালেখি করুন। আপনি হয়ত একটু লক্ষ্য করলে দেখবেন আজ কাল ফেসবুকে অনেকই বিভিন্ন বিষয় নিয়ে লেখালেখি করে বেশ জনপ্রিয়তা অর্জন করছে। এবং তাদের লাইক ও ফলোয়ার তৈরি হয়েছে।

গল্প, কবিতা, উপন্যাস, টেকনোলজি, ফ্যাশন, লাইফস্টাইল ইত্যাদি বিষয়ে লেখালেখি করলে সহজে জনপ্রিয়তা পাওয়া যায়। তাই এই সব বিষয় নিয়ে লেখালেখি করুন। আপনি যদি গৃহিণী হয়ে থাকেন সেক্ষেত্রে রান্না বিষয়ে বা রান্নার রেসিপি নিয়ে লেখালেখি করতে পারেন। এতে করে সহজে খুব দ্রুত পেজের লাইক বৃদ্ধি পাবে।

২. নিয়মিত আর্টিকেল পাবলিশ করা

খুব দ্রুত লাইক ও ফলোয়ার পেতে আপনাকে নিয়মিত পেজে লেখা পাবলিশ করতে হবে। কারন যারা আপনার ফলোয়ার তারা চাইবে আপনি নিয়মিত লেখা পাবলিশ করেন। আপনি যদি শখের বসে মাঝে মধ্যে লেখা পাবলিশ করেন এতে করে পাঠক পোস্ট গুলি এড়িয়ে চলে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। তাই পেজে লাইক পেতে নিয়মিত লেখা পাবলিশ করার চেষ্টা করতে হবে।

৩. ভাল সম্পর্ক গড়ে তোলা

আপনাকে যারা ফলো করে তার কিন্তু আপনার শুভাকাঙ্খি। সুতরাং তাদের সাথে ভাল বন্ধুতপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রাখুন। যারা আপনার পোস্টে ভাল কমেন্ট করবে তাদের কমেন্ট এর রিপ্লাই দেয়ার চেষ্টা করুন এবং একটি লাভ রিয়েক্ট দিয়ে পারেন এতে করে সে বুঝতে পারবেন আপনি তার কমেন্ট অনেক পছন্দ করেছেন। এবং মাঝে মধ্যে পেজের ইনবক্স চেক করবেন কেউ মেসেজ দিয়ে তার উওর দিন। এতে করে আন্তরিকতা অনেক বাড়বে। পাশাপাশি ওরা আপনার পোস্ট শেয়ার করে পেজে লাইক বাড়াতে সাহায্য করবে।

৪. বিভিন্ন ফেসবুক গ্রুপে জয়েন করুন

ফেসবুকে অনেক বড় এবং ভাল মানের গ্রুপ রয়েছে। যেখানে নানা বিষয় নিয়ে লেখালেখি হয়। আলোচনা হয়। সেই সকল গ্রুপে জয়েন করুন। আপনার লেখা সেই সকল গ্রুপে শেয়ার করুন। ভাল কোন টপিক নিয়ে সেই গ্রুপে পোস্ট লিখুন এবং লেখা শেষে আপনার পেজের লিঙ্ক দিয়ে বা নাম বলে সবাইকে বলুন এই পেজে লাইক দিতে। এতে করে খুব দ্রুত আপনার পেজে লাইক বেড়ে যাবে।

ফেসবুক থেকে আয় করার উপায়

ফেসবুক থেকে ইনকাম করার মেইন হাতিয়ার হল ফেসবুক পেজ। এরই মধ্যে আমরা শিখলাম কি ভাবে পেজ তৈরি করব এবং কি ভাবে পেজে লাইক ও ফলোয়ার বাড়াব। এখন জানব এই পেজকে কাজে লাগিয়ে ফেসবুক থেকে কি ভাবে আয় করা যায়-

ফেসবুকে ভিডিও আপলোড করে আয়

আমরা সবাই জানি ইউটিউবে চ্যানেল খুলে মনিটাইজেশন এর মাধ্যমে ভিডিও আপলোড করে ইনকাম করা যায়। আপনি চাইলে এখন ফেসবুকে পেজ খুলে ভিডিও আপলোড করে ইনকাম করতে পারবেন। কিন্তু পেজে ভিডিও আপলোড দিলে ত আর ইনকাম হবে না। তার জন্য ফেসবুক এর কিছু নিয়ম রয়েছে। আপনার পেজে সেই নিয়ম গুলা ফিলাপ হলে ফেসবুক আপনার পেজ মনিটাইজেশন দিবে এবং In-Stream Ads আপনার ভিডিওতে শো করানোর মধ্যে দিয়ে আপনি ভিডিও থেকে ইনকাম করতে পারবেন।

ফেসবুক In-Stream Ads কি?

ফেসবুক In-Stream Ads হলো এমন একটি সার্ভিস যেটি দিয়ে ফেসবুক পেজে আপলোড করা ভিডিওতে বিজ্ঞাপন বা ads শো করানো যায়। এই বিজ্ঞাপন গুলো যখন লোকজন দেখবে বা ক্লিক করবে তখন আপনি ফেসবুক থেকে টাকা আয় করতে পারবেন। তবে মনে রাখতে হবে ফেসুবক In-Stream Ads এর বিজ্ঞাপন ফেসবুক পেজ ব্যাতীত অন্য কোথায় ব্যবহার করা যায় না।

In-Stream Ads পেজে পাওয়ার জন্য কি কি লাগবে?

আপনার পেজের ভিডিওতে ফেসবুক In-Stream Ads সার্ভিসটি ব্যবহার এর জন্য কিছু নিয়ম পূরণ করতে হবে। ফেসবুক এর দেয়া কিছু নিয়ম যদি পূরণ করতে পারেন তাহলে আপনি এই সার্ভিসটি ব্যবহার করে ইনকাম করতে পারবেন।

যা যা লাগবে In-Stream Ads পেতে

  • আপনার নিজের একটি Facebook Page থাকে হবে। পেজ ছাড়া পার্সোনাল আইডি তে In-Stream Ads এর বিজ্ঞাপন লাগানো যায় না।
  • আপনার ফেসবুক পেজে ১০,০০০ হাজার লাইক থাকে হবে। গত ৬০ দিনে আপনার ফেসবুক পেজের ভিডিওতে মিনিমাম ৬০০,০০০ মিনিট ভিউস টাইম থাকতে হবে এবং প্রত্যেকটি ভিউ মিনিমাম ১ মিনিটের হতে হবে। তাছাড়া আপনার প্রত্যেকটি ভিডিও কমপক্ষে ৩ মিনিট লম্বা হতে হবে। কারণ ৩ মিনিটের ছোট ভিডিওতে ফেসবুক বিজ্ঞাপন শো করে না।
  • আপনার ভিডিও এর ভাষা ফেসবুক In-Stream Ads সাপোর্ট করে না, এমন ভিডিও আপলোড করলে ভিডিও মনিটাইজ হবে না। তবে টেনশনের কোন কারণ নেই, ফেসবুক In-Stream Ads বাংলা ভাষা সাপোর্ট করে।
  • আপনার বয়স কমপক্ষে ১৮ বছর হতে হবে।
  • পেইজে কমপক্ষে ৫ টি ভিডিও থাকতে হবে।
  • ফেসবুক এর Partner Monetisation Policies মেনে ভিডিও তৈরি করতে হবে।

উপরের এই নিয়ম গুলা পূরণ করলে আপনি আপনার ভিডিওতে In-Stream Ads সার্ভিসটি ব্যবহার করার যোগ্যতা অর্জন করবেন এবং ভিডিওতে অ্যাড দেখানোর মাধ্যমে ইনকাম করতে পারবেন। আর In-Stream Ads এর জন্য আপনার পেইজটি Eligible নাকি সেই সম্পর্কে আপ-টু-ডেট Requrements-গুলো জানতে ফেসবুকের এই অফিশিয়াল পেইজটি ভিজিট করতে পারেন। 

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে আয়

বর্তমান সময়ে কোন ইনভেস্ট ছাড়া সহজে ইনকাম করার একটি মাধ্যম হল অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং। আপনার যদি অনেক লাইক এবং ফলোয়ার এর ফেসবুক গ্রুপ বা পেজ থাকে তাহলে আপনি অন্যের প্রোডাক্ট অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে প্রতিমাসে ইনকাম করতে পারবেন। যেমন ধরুন, আপনি আপনার পেজে এমএসবি একাডেমীর কোন অনলাইন কোর্স নিয়ে আপনার পেজে বা গ্রুপে সুন্দর একটি পোস্ট দিলেন এবং সাথে আপনার অ্যাফিলিয়েট লিঙ্ক দিয়ে দিলেন। তাহলে সেই লিঙ্কে ক্লিক করে যত মানুষ কোর্সটি কিনবে আপনি সেখান থেকে একটা কমিশন পাবেন। এমএসবি একাডেমী অ্যাফিলিয়েট মার্কেটারদের জন্য ২০% কমিশন দিয়ে থাকে।

আপনি যদি অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং সম্পর্কে আরও বিস্তারিত জানতে চান এবং এমএসবি একাডেমীর অ্যাফিলিয়েট প্রোগ্রামে জয়েন হতে চান তাহলে এই আর্টিকেলটি পড়ে ফেলুন।

অ্যাকাউন্ট বিক্রি করে আয়

একটা সময় ছিল যখন মানুষ শখের বশে একের অধিক ফেসবুক আইডি, পেজ, এবং গ্রুপ খুলত। আপনি কিন্তু চাইলে এখন সেই পেজ,বা গ্রুপ বিক্রি করে আয় করতে পারেন। আপনার পুরাতন কোন পেজ বা গ্রুপে যদি অনেক বেশী মেম্বার থাকে, লাইক ও ফলোয়ার থাকে তাহলে সেটা বিক্রি করে ভাল টাকা ইনকাম করতে পারেন। কেননা অনেকদিন আগে থেকেই এসব পেজ-গ্রুপের সাথে ইউজাররা পরিচিত হয়ে আছে। পাশাপাশি, অনলাইন মার্কেটপ্লেসে এসব পুরাতন অ্যাকাউন্ট-পেজ-গ্রুপের প্রচুর চাহিদা।

অনলাইন মার্কেটিং করে ইনকাম

বর্তমান সময়ে সবচেয়ে বড় মার্কেটপ্লেস হল অনলাইন মার্কেটপ্লেস। ড্রেস, মেকাপ সামগ্রী, জুয়েলারি, বই এবং ঘরের আসবাবপত্র কেনা বেচার জন্য ফেসবুকে অনলাইন শপ গড়ে উঠেছে। ফেসবুকে বিভিন্ন পেজ এবং গ্রুপে বিভিন্ন পন্যের ছবি দিয়ে মূল্য দেয়া থাকে এবং যোগাযোগের জন্য ইনবক্স করে টাকা পেমেন্ট করে দিয়ে আপনার অ্যাড্রেস দিলে পণ্য বাসায় পৌঁছে দিবে। আপনার যদি অনেক লাইক এবং ফলোয়ার এর কোন পেজ এবং গ্রুপ থাকে সে ক্ষেত্রে অনেক প্রতিষ্ঠান ও ব্র্যান্ড রয়েছে যারা অনলাইনে তাদের পন্যের মার্কেটিং করে থাকে এই সব পেজের মাধ্যমে। এই ভাবে আপনি মার্কেটিং করেও ইনকাম করতে পারবেন।

লাইক বিক্রি করে ইনকাম

আপনার যদি অনেক লাইক ও ফলোয়ার যুক্ত কোন পেজে বা গ্রুপ থাকে তাহলে আপনি অন্যের পেজ বা গ্রুপ promote করে মেম্বার অ্যাড করে এবং লাইক বাড়িয়ে দিয়ে ইনকাম করতে পারেন। অনেক পেজ এবং গ্রুপ রয়েছে যারা তাদের পেজে বা গ্রুপে মেম্বার বাড়ানোর জন্য এই পদ্ধতি অবলম্বন করে থাকে। এমন অনেকই রয়েছে যারা যত লাইক তত টাকা নিয়ে থাকে। অর্থাৎ আপনি ৫০০০ লাইক দিতে পারলে ৫০০০ টাকা পেয়ে যাবেন। যাদের অনেক লাইক ফলোয়ার যুক্ত গ্রুপ বা পেজ রয়েছে তাদের জন্য এইটা খুবই সহজ খুব অল্প সময়ের কাজ।

ফেসবুকে ফ্রিল্যান্সিং করে আয়

অনলাইনে ইনকাম বলতে আমরা সবাই কিন্তু ফ্রিল্যান্সিং কেই বুঝে থাকি। এবং এই নামটির সাথে সবাই পরিচিত যারা অনলাইনে কাজ করেন। ফ্রিল্যান্সিং করতে গেলে সবচেয়ে বড় সে সমস্যার সম্মুখীন হতে হয় সেটা হল কাজ পাওয়া নিয়ে। অনেক সময় দেখা যায় ফ্রিল্যান্সাররা তাদের পছন্দ এবং যোগ্যতা অনুযায়ী কাজ পাচ্ছে পাচ্ছে না। আপনি চাইলে ফেসবুক এর মাধ্যমেও ফ্রিল্যান্সিং করতে পারেন। ফেসবুকে ফ্রিল্যান্সিং নিয়ে বেশ কিছু সক্রিয় গ্রুপ রয়েছে। সেখানে মেম্বাররা বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন কাজের অপরচুনিটি শেয়ার করে। যেমন, ভিডিও এডিটিং, গ্রাফিক্স ডিজাইন, কন্টেন্ট রাইটিং, ডিজিটাল মার্কেটিং এর মত নানা ফ্রিল্যান্সিং কাজের জন্য রয়েছে হাজারো গ্রুপ ও পেজ। আপনি এই সকল গ্রুপে জয়েন হয়ে আপনি যে বিষয়ে দক্ষ্য সেই সার্ভিস দিয়ে টাকা আয় করতে পারেন।

ইনফ্লুয়েন্সার মার্কেটিং

ফেসবুকে ইনফ্লুয়েন্সার বিষয়টা অনেকটা আধুনিক ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর এর মত। নামকরা কোম্পানিগুলো তাদের ব্যবসা প্রচারণার জন্য স্বনামধন্য ও খ্যাতিমান ব্যক্তিদেরকে তাদের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর হিসেবে নিযুক্ত করে। কিন্তু তার জন্য আপনার প্রোফাইলে যথেষ্ট লাইক এবং ফ্যান ফলোয়ার থাকতে হবে। তার পাশাপাশি আপনার প্রতিদিনকার ফেসবুক এক্টিভিটিতে ফলোয়ারদের সন্তোষজনক প্রতিক্রিয়া থাকতে হবে।

অনেক সময় ব্র্যান্ড আপনার সাথে সরাসরি যোগাযোগ করতে পারে। আবার আপনি চাইলে BlogMint, Fromote, Hireinfluence এর মত ইনফ্লুয়েন্সার মার্কেট এজেন্সির মাধ্যমেও করতে পারেন।  তার জন্য তাদের ওয়েবসাইটে নির্দিষ্ট তথ্য প্রদানের মাধ্যমে আপনার অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে। অ্যাকাউন্ট খোলার পরপরই আপনি কোনো এক ব্র্যান্ডের প্রতিটি পোস্টের জন্য নির্দিষ্ট মূল্য নির্ধারণ করবেন এবং পরবর্তীতে ঐসব ব্র্যান্ডের পোস্ট প্রচার করার মাধ্যমে আপনি ফেসবুকে আয় করতে পারবেন।

ফেসবুকে পণ্য ক্রয়-বিক্রয় করে আয়

ফেসবুক সোশ্যাল মিডিয়ার পাশাপাশি বর্তমানে অনেক বড় একটি (Buy and Sell) কেনা বেচার মার্কেটে পরিনত হয়েছে। আমাদের সবার বাসায় কমবেশি এমন অনেক জিনিস রয়েছে যা আমরা বছরের পর বছর রেখে দিয়েছি ব্যবহার করা হয় না। আপনি চাইলে আপনার অব্যবহারিত এই সকল জিনসপত্র ফেসবুকে বিক্রি করে ইনকাম করতে পারেন। ফেসবুকে (Buy and Sell) কেনা বেচার অসংখ্য গ্রুপ রয়েছে। যেখানে আপনি জয়েন হয়ে আপনার পুরাতন জিনিস বিক্রি করে নতুন জিনিস কিনে নিতে পারেন।

ধরুন আপনার ক্যামেরার মডেল অনেক পুরাতন হয়ে গেছে আপনি চাচ্ছেন নতুন মডেল এর ক্যামেরা কিনতে সেক্ষেত্রে আপনি কেনা বেচার গ্রুপে আপনার ক্যামেরা সব তথ্য দিয়ে পোস্ট করলে সেটা অন্য কেউ কম দামে কিনে নিবে। তবে এই ক্ষেত্রে লেনদেন এর ব্যপারে একটু সতর্ক থাকবেন।

অনলাইন প্রতিযোগিতা থেকে আয়

দেশের বড় বড় কোম্পানি তাদের কোম্পানি এবং পন্যের মার্কেটিং বা প্রোমোশনের এর জন্য অনলাইনে প্রতিযোগিতার আয়োজন করে থাকে। এই প্রতিযোগিতার মূল্য উদ্দেশ্য থাকে গ্রাহকদের কাছে তাদের পন্যের প্রচার। আর এই সকল ক্যাম্পেইন এর জন্য মার্কেটিং প্ল্যাটফর্ম হিসেবে ফেসবুকে বেছে এই সব কোম্পানি। এসব প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে আপনার কাজ হবে বেশি বেশি লাইক, শেয়ার এবং ট্যাগ দেয়া। আর এই সব প্রতিযোগিতার পুরষ্কার হিসেবে বেশ মোটা অংকের টাকা প্রদান করা হয়। অনেক সময় আবার অনেক কোম্পানি চাকরির সুযোগ প্রদান করে থাকে।

ফেসবুক পোস্ট বা কন্টেন্ট বিক্রির মাধ্যমে আয়

ফেসবুক পোস্ট বা কন্টেন্ট বিক্রির মাধ্যমে আয় করতে হলে আপনাকে প্রথমে একটি ফেসবুক পেজ তৈরি করতে হবে। সেক্ষেত্রে আপনি যে বিষয় নিয়ে আগ্রহী সে বিষয় নিয়ে পেজ খুলতে পারেন। পেজ খুলা হলে সেখানে নিয়মত সুন্দর এবং মানসম্মত কন্টেন্ট বা পোস্ট আপলোড দিতে হবে। শপসামথিং (shopsomething.com) নামক অনলাইন একটি ওয়েবসাইট আছে যেখানে আপনি আপনার ফেসবুক পোস্ট বিক্রি করতে পারেন। এখানে নিজের একাউন্ট খুলে আপনার ফ্যান পেজের প্রতিটি পোস্টের জন্য নির্দিষ্ট মূল্য ধার্য করে দিতে হবে। তবে মূল্য নির্ধারণ এর ক্ষেত্রে লক্ষ্য রাখবেন যেন খুব বেশী মূল্য না হয়। আপনাকে নিদিষ্ট অর্থ দিয়ে আপনার এই সব পোস্ট ক্রয় করা হবে এবং পরবর্তীতে বিভিন্ন অ্যাডভারটাইজের জন্য এই সকল পোস্ট বা ছবি ব্যবহার করা হবে।

কোথায় থেকে শিখবেন ফেসবুক থেকে ইনকামের সব টেকনিক?

আশা করি এই আর্টিকেলটি পড়ে আপনি বুঝতে পেরেছেন যে কি কি উপায়ে ফেসবুক থেকে ইনকাম করা যায়। এখন শুধু উপায় জানলে ত হবে না ফেসবুকে এই বিষয়গুলো নিয়ে কিভাবে কাজ করবেন? সে সম্পর্কে প্রয়োজন কমপ্লিট একটি গাইডলাইন। তাই ফেসবুক মার্কেটিং এবং ইনকাম নিয়ে আমাদের এমএসবি একাডেমীতে রয়েছে কমপ্লিট একটি ফেসবুক মার্কেটিং কোর্স। যেখানে অ্যাড মার্কেটিং থেকে শুরু করে ফেসবুক মার্কেটিং এবং ইনকামের সকল বিষয় হাতে কলমে শিখানো হয়েছে। লাইফ টাইম ইনসট্রাক্টর সাপোর্ট, লাইফ টাইম কোর্স এক্সেস সহ কোর্সের সাথে পাবেন ফ্রি রিসোর্স। যা মার্কেটপ্লেসে ফেসবুক মার্কেটার হিসাবে কাজ করতে কিংবা নিজেই ফেসবুক থেকে ইনকাম করতে চাইলে সেই ক্ষেত্রে এই কোর্স আপনাকে অন্য সবার থেকে কয়েক ধাপ এগিয়ে রাখবে।

পরিশেষে একটি কথা, ফেসবুক শুধু মাত্র বিনোদনের জায়গা নয়। ফেসবুকে শুধু মাত্র চ্যাটিং আর লাইক কমেন্ট এর মধ্যে সীমাবদ্ধ না থেকে প্রতি মাসে খুবই ভাল একটি ইনকাম চাইলেই করতে পারেন। তার জন্য খুব বেশী কিছুর প্রয়োজন নেই ইচ্ছা শক্তি, একটু মেধা আর সময় দিলে হবে।

Leave a Reply

error: