Blog

কোডিং ছাড়া কীভাবে গেম তৈরি করে ফ্রিল্যান্সিং এবং Passive Income ইনকাম করবেন?

game development bangla blog

সময়ের সাথে সাথে এখন চাহিদার শীর্ষে গেইমিং ইন্ডাস্ট্রি। প্রযুক্তির উন্নতি এবং নতুন আবিষ্কারের ফলে এই গেইম ইন্ডাস্ট্রি এখন বিলয়ন ডলারে পরিণত হয়েছে। একটি প্রতিবেদনে দেখা গিয়েছে, ২০২০ সালে বিশ্বজুড়ে ভিডিও গেমের বাজারমূল্য ছিল ১৭৪ দশমিক ৯ বিলিয়ন মার্কিন ডলার, যা প্রতিবছর ১৯ দশমিক ৬ শতাংশ হারে বাড়ছে এবং সামনে আরও বাড়বে। আসলে গেইমিং ইন্ডাস্ট্রিতে বিলিয়ন ডলারের বাজার রয়েছে। সুতরাং বুঝতে পারছেন সময়ের সাথে সাথে গেইম ডেভেলপমেন্ট এর চাহিদা বেড়েই চলেছে । তাই আপনি যদি চান একজন প্রফেশনাল মানের গেইম ডেভেলপার হয়ে ক্যারিয়ার গড়তে তাহলে এখই শুরু করার উপযুক্ত সময়। আজকে এই আর্টিকেলে গেইম ডেভেলপমেন্ট কি? এবং গেইম ডেভেলপমেন্ট শিখে কি ভাবে প্যাসিভ ইনকাম করবেন সেই বিষয়ে আলোচনা করা হয়েছে।

গেইম ডেভেলপমেন্ট কি?

আমরা আমাদের কম্পিউটার এবং মোবাইল যে গেইমগুলা খেলি এই গেইম তৈরির পক্রিয়াকে মূলত Game Development বলা হয়। এই গেইমগুলা এমনেই আসে না। কেউ না কেউ তৈরি করে। গেইম ডেভেলপমেন্ট এর বিভিন্ন ধাপ রয়েছে যেমন গেম ডিজাইনিং, কোডিং, অ্যানিমেশন ইত্যাদি। গেইম ডেভেলপাররা সেই ধাপগুলা ভালভাবে কমপ্লিট করে একটি গেইম ডেভেলপমেন্ট করে থাকে। গেইম ডেভেলপমেন্ট এর জন্য বিভিন্ন ধরনের সফটওয়্যার রয়েছে যেমন –

  • গেইম ইঞ্জিন
  • UNITY 3D
  • মডেলিং সফটয়্যার
  • Unreal Engine

এই আর্টিকেলে Unreal Engine নিয়ে আলোচনা করব। কেন আপনি গেইম ডেভেলপমেন্টের জন্যএই Unreal Engine কে বেছে নিবেন? এবং এর বিশেষ সুবিধা সম্পর্কে জানব।

কেন Unreal Engine দিয়ে গেইম ডেভেলপমেন্ট শিখব?

মর্ডান AAA গেমগুলোতে ব্যাপকভাবে ব্যাবহার হয় এই ইঞ্জিন। ছোট, বড় প্রায় সকল ধরণের স্টুডিওগুলো গেইম তৈরিতে এই ইঞ্জিন ব্যবহার করে থাকে। অসাধারণ গ্রাফিক্স এবং ভালো অপটিমাইজেশনের জন্যে এই ইঞ্জিনটি বেশ জনপ্রিয়। C++ প্রোগ্রামিং ল্যাংগুয়েজ দ্বারা লজিক ডিজাইন করা হয়, এছাড়াও পাওয়ারফুল ভিজুয়াল স্ক্রিপ্টিং টুল থাকায় এ দিয়ে বিগিনাররা সহজেই ডেভেলপমেন্টের স্বাদ পেতে পারেন। আনরিয়েল ইঞ্জিন শেখার জন্যে প্রোগ্রামিং জানাটা একদমই অত্যাবশ্যক না।

ভিজুয়াল স্ক্রিপ্টিং করে অনেক ভালো মানের গেম বানানো সম্ভব। কোর্সটিতে আমি মূলত কোন প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ (No Coding!!) ছাড়াই Visual Scripting এর মাধ্যমে সবকিছু শিখিয়েছি। তার মানে যারা প্রোগ্রামিংকে ভয় পান তারাও নির্ভয়ে কোন রকম প্রোগ্রামিং ছাড়াই প্রফেশনাল মানের গেইম ডেভেলপ করতে পারবে।

Unreal Engine দিয়ে গেইম তৈরি করতে কি কোডিং দক্ষতা প্রয়োজন?

Unreal Engine দিয়ে গেম তৈরি করতে আপনার কোডিং দক্ষতা প্রয়োজন নেই। এটি একটি ভিজ্যুয়াল গেম ডেভেলপমেন্ট টুলসের মাধ্যমে কাজ করে যার মাধ্যমে প্রোগ্রামিং জ্ঞান ছাড়াই আপনাকে গেম বানাতে ইউনরিয়াল ইঞ্জিনের নোকোড টুলস ব্যবহার করে আপনি ইন্টারফেস ডিজাইন করতে পারবেন ও আকারের মধ্যে গেম লজিক সেট করতে পারেন এবং বিভিন্ন গেম মেকানিক তৈরি করতে পারবেন। সাধারণত, এই টুলস ব্যবহার করে আপনি ড্র্যাগ-এন্ড-ড্রপ পদ্ধতিতে বিভিন্ন অপারেশন সেট করতে পারবেন যার জন্য কোডিং জানার প্রয়োজন নেই।

Unreal Engine দিয়ে একটি গেম তৈরি করতে যে ধাপগুলি জানতে হবে

১) প্রোজেক্ট নির্ধারণ

প্রথমেই আপনার গেইমের প্রোজেক্ট নির্ধারণ করতে হবে। এটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ তাই গেইমের জন্য আকর্ষণীয় এবং সঠিক প্রোজেক্ট নির্বাচন করতে হবে। গেইমের ধরন, ক্যাটাগরি, গেইমপ্লে, গ্রাফিক্স, অডিও এবং আপনার লক্ষ্য ঠিক রাখুন।

২) সফটওয়্যার সেটআপ এন্ড কনফিগার

Unreal Engine সেটআপ করতে হবে এবং গেইম ডেভেলপমেন্ট এর জন্য প্রয়োজনীয় সেটিংস কনফিগার করতে হবে। ডেভেলপমেন্ট টুলস ইনস্টল এবং প্রোজেক্টটি তৈরি করতে হবে। সঠিকভাবে শুরুতে সব কিছু কনফিগার করে ফেললে আপনি সুন্দরভাবে গেইম ডেভেলপমেন্ট করতে পারবেন।

৩) গেইমের লেভেল ডিজাইন

গেইমের লেভেল ডিজাইন এবং লেভেল এডিটর ব্যবহার করে লেভেলগুলি তৈরি করতে হবে। গেইমের প্রধান ভূমিকা, স্থান, মানচিত্র, প্রোপ, পাজল, নির্দেশিকা, কমপক্ষে একটি লেভেলের আইডেন্টিটি, কার্যকারিতা, আইএমপি, আইন এবং কমপক্ষে একটি লেভেলের সাথে সম্পর্কিত সবকিছু নির্ধারণ করতে হবে।

৪) গেইমের মেকানিক তৈরি

গেইমের মেকানিক নির্ধারণ করতে হবে এবং Blueprint বা কোডিং ব্যবহার করে গেইমের কার্যকারিতা তৈরি করতে হবে। আপনি Unreal Engine এবং Blueprint ব্যবহার করে মেকানিক তৈরি করতে পারবেন। যেমনঃ চালানো, বাধা, আক্রমণ, বীরত্ব, পাজল, বীরত্ব এবং কাউন্টার সিস্টেম ইত্যাদি।

৫) গ্রাফিক্স এবং অডিও ডেভেলপমেন্ট

গেইমের গ্রাফিক্স এবং অডিও ডেভেলপমেন্ট করতে হবে। বিভিন্ন অ্যাসেট তৈরি করতে হবে বা আউটসোর্স করতে হবে যেমনঃ টেক্সচার, মডেল, এনিমেশন, শব্দ, সংগীত ইত্যাদি। ইউনিটির সহায়তায় এই অ্যাসেটগুলি গেইমে সংযুক্ত করে এবং গ্রাফিক্স এবং অডিও ক্যাটাগরি অনুযায়ী পরিবর্তন করতে হবে।

৬) সব কিছু পুনরায় টেস্ট করতে হবে

সব কিছু কমপ্লিট হয়ে গেলে গেইমটি টেস্ট করতে হবে এবং কোন ধরনের সমস্যা থাকলে সেটা সংশোধন করে নিতে হবে। টেস্টিং করে দেখতে হবে যে গেইমটি সঠিকভাবে কাজ করছে কি না আপনার মত করে যেমনটা আপনি চেয়েছিলেন। টেস্টিং এর মাধ্যমে সিস্টেম, গেইমপ্লে, অডিও, গ্রাফিক্স, সমস্যাগুলি সমাধান করে গেইমটি পাবলিশ এর জন্য প্রস্তুত করে ফেলতে হবে।

৭) গেইম পাবলিশ

সব কিছু ঠিক থাকলে গেইমটি পাবলিশ করে দিন। যাতে অন্যান্য ব্যবহারকারীরা এটি খেলতে পারেন। আপনি চাইলে মার্কেটপ্লেস ব্যবহার করে গেইমটি পাবলিশ করতে পারেন বা অন্যান্য প্ল্যাটফর্মে গেমটির পাবলিশ করতে পারেন। মোবাইল গেইম হলে সেই ক্ষেত্রে Google Play এবং App Store-এ পাবলিশ করতে পারেন।

Unreal Engine দিয়ে গেইম ডেভেলপমেন্টের করার সুবিধা

১) কোডিং দক্ষতা ছাড়াই গেইম ডেভেলপমেন্ট করা যাবে

Unreal Engine দিয়ে কোন রকম কোডিং দক্ষতা ছাড়াই ডেভেলপমেন্ট করা যায়। এটা বেশিরভাগ উইজারদের জন্য উপযুক্ত। যাদের কোডিং সম্পর্কে জ্ঞান নেই বা কোডিং অনেক ঝামেলার মনে হয় তাদের জন্য এটি বেশ সুবিধাজনক।

২) দ্রুত গেইম ডেভেলপমেন্ট করা যায়

Unreal Engine দিয়ে গেইম ডেভেলপমেন্ট করলে ডেভেলপমেন্ট প্রক্রিয়া দ্রুত ও সহজ হয়। এখানে আপনি গ্রাফিকাল ইন্টারফেস ব্যবহার করে ডেভেলপমেন্ট কার্যক্রম সম্পাদন করতে পারেন যা ডেভেলপমেন্ট প্রক্রিয়াকে সহজ করে তুলে।

৩) ভিজুয়াল ডেভেলপমেন্ট

Unreal Engine দিয়ে গেইম ডেভেলপমেন্ট করলে আপনি ভিজুয়াল ডেভেলপমেন্ট টুলস ব্যবহার করে কাজ করতে পারবেন। এটার মানে হল আপনি গ্রাফিকাল ইন্টারফেসের মাধ্যমে গেইম এর কার্যক্রম নির্মাণ করতে পারবেন এবং ডেভেলপমেন্টের সময় দেখতে পারবেন গেইম কি আপনি যে ভাবে চাচ্ছেন সে ভাবে হচ্ছে কি না।

৪) কম্প্লেক্সিটি ম্যানেজমেন্ট

Unreal Engine দিয়ে গেইম ডেভেলপমেন্ট করলে কম্প্লেক্সিটি ম্যানেজমেন্ট অনেক সহজ হয়। আপনি ডেভেলপমেন্ট প্রক্রিয়ায় ভিজুয়াল কন্ট্রোল ব্যবহার করে কম্প্লেক্স টাস্কগুলি পরিচালনা করতে পারবেন এবং কোডিং নির্ভর করতে হবে না।

৫) টিম গঠন করে কাজ করা যায়

Unreal Engine দিয়ে গেম ডেভেলপমেন্ট করলে আরও একটি বিশাল সুবিধা পাওয়া যায় সেটা হচ্ছে টিম গঠন করে কাজ করা যায়। টিমের সদস্যরা সহজেই একই প্রকল্পে সহযোগিতা করতে পারবে এবং বিভিন্ন ধাপে তাদের পরিকল্পনাও পরিচালনা করতে পারবে।

Play Store গেইম পাবলিশ এবং ফ্রিল্যান্সিং করে প্যাসিভ আয়

বর্তমানে সবাই স্মার্ট ফোন, ল্যাপটপ ও কম্পিউটার ব্যবহার করে থাকে। আর এই সকল ডিভাইস ব্যবহার করে আর গেইম খেলে না এমন মানুষ খুব কম রয়েছে। আপনি চাইলে আপনার তৈরি করা গেইম প্লে স্টোরে পাবলিশ করে ইনকাম করতে পারবেন। প্লে স্টোর হলো একটি বিশাল প্ল্যাটফর্ম যেখানে আপনি আপনার তৈরি করা গেমগুলি পাবলিশ করে ইনকাম করতে পারবেন। এমনকি গেইমে Ads দেখিয়েও প্যাসিভ ইনকাম করা যায়। আর ফ্রিল্যান্সিং সেক্টরগুলোতে গেইম ডেভেলপারদের জন্য High-demand এর প্রচুর জব রয়েছে।

আপন যদি Fiverr, Upwork মার্কেটপ্লেসে একটু ঘাটাঘাটি করেন তাহলে দেখতে পারবেন সেখানে প্রফেশনাল গেইম ডেভেলপারদের অনেক ডিমান্ড। অনেক বড় প্রোজেক্ট এর গেইম তৈরি করার জন্য টিম মেম্বার হিসেবে গেইম ডেভেলপারদের হায়ার করা হয়। আবার অনেক ছোট ছোট কাজও রয়েছে যা করেও প্রতি মাসে ইমকাম করা যায়।

এছাড়াও আপনি চাইলে অফলাইনেও অনেক ক্লাইন্ট এর কাজ করে ইনকাম করতে পারবেন। আসলে গেইম ডেভেলপমেন্ট এমন একটি সেক্টর আপনি যদি একবার এই সেক্টরে এক্সপার্ট হতে পারেন তাহলে নানা উপায়ে ইনকাম করা সম্ভব।

কিভাবে শিখবেন প্রফেশনাল গেইম ডেভেলপমেন্ট?

গেইম ডেভেলপমেন্ট কি? কি ভাবে করবেন গেইম ডেভেলপমেন্ট? এবং গেইম ডেভেলপমেন্ট করার জন্য কোন সফটওয়্যারটি ভাল এই সম্পর্কে আমরা এত সময় জানলাম। এখন আপনার মনে প্রশ্ন আসতে পারে কি ভাবে শিখব এই এই গেইম ডেভেলপমেন্ট। আপনার জন্য সু খবর হচ্ছে আমাদের MSB Academy তে সম্পূর্ণ বাংলায় পাবলিশ করা হয়েছে Project Based No-Code Game Development Masterclass নামে একটি কোর্স। যেখানে কোন রকম পূর্ব অভিজ্ঞতা এবং প্রোগ্রামিং নলেজ ছাড়াই আপনি যদি Unreal Engine দিয়ে প্রফেশনাল মানের কম্পিউটার অথবা মোবাইল গেইমস তৈরি করে Google Ads, Game Sell, In-App Purchase এবং হাই-ডিমান্ডের সব ফ্রিল্যান্সিং জব করে ইনকাম করতে হয় সব বিষয়ে কমপ্লিট গাইড লাইন দেয়া হয়েছে।

আপনি কোর্সটিতে একবার জয়েন করলে লাইফ টাইম কোর্স এক্সেস পাবেন এবং কাজ শিখার জন্য সে সফটওয়্যার লাগবে সব কিছু কোর্সের সাথে দিয়ে দেয়া হবে। আর যে কোন সমস্যায় কোর্সের প্রাইভেট ফোরামে ইনসট্রাক্টর থাকবে। So এখন আপনার যদি ইচ্ছা থাকে একজন গেইম ডেভেলপার হয়ে ক্যারিয়ার গড়ার তাহলে এই আর্টিকেলটি পড়া শেষ করে জয়েন হয়ে জান কোর্সটিতে।

পরিশেষে একটি কথা, দিন যত যাবে গেমিং সেক্টরে আরও বিলিয়ন ডলারের বিজনেসে পরিণত হবে। তাই বলা যায় আপনি যদি এই গেইমিং সেক্টরে প্রফেশনাল ভাবে কাজ শিখেতে পারেন তাহলে সফল ক্যারিয়ার গড়তে পারবেন। কারণ এই সেক্টরের যে চাহিদা সেই তুলনায় প্রফেশনাল মানের ডেভেলপার অনেক কম রয়েছে। তাই সময় নষ্ট না করে এই সেক্টরে স্কিল অর্জন শুরু করে দিন।

Comments

  • User Avatar
    Sunil Yadav
    August 8, 2023

    nice post. কোর্সটিও অসাধারণ

  • User Avatar
    maher45
    December 28, 2023

    আপনাদের নিয়মিত একজন স্টুডেন্ট আমি। আপনাদের ব্লগ এবং মাসুক ভাইয়ের ইউটিউব চ্যানেল এর ভিডিও গুলা দেখে অনেক কিছু শিখতে পেরেছি।

Leave a Reply

error: Alert: Content selection is disabled!!